শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

জীবনকে সুখী ও সমৃদ্ধ করতে অবশ্যই নৈতিকতার মাধুর্যের উৎকর্ষ–সাধনা করতে হবে। নৈতিক শিক্ষার মধ্য দিয়ে সমাজ জীবনে ন্যায়–নীতি, মানবিক মূল্যবোধ ও মহৎ আদর্শ প্রতিষ্ঠা করতে হলে সবাইকে সত্য ও ন্যায় কর্মে সচেতনতার জোয়ার সৃষ্টি করতে হবে। সমাজ জীবন থেকে অনৈতিকতা ও মূল্যবোধহীনতা দূর করার জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। সমাজ, দেশ, রাষ্ট্রকে ও জাতিতে সব ধরনের বিভেদ, অন্যায়–অনিয়ম ও অবিচারের অবসান ঘটাতে হবে।

জনগণের মধ্যে দেশাত্মবোধের মহাসমাবেশ ঘটাতে হবে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে কঠোর হতে হবে—তবেই পৃথিবীতে উন্নত জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো সম্ভব। আর সকল মানুষের অন্তরে ধারণ করতে হবে —- নীতি থেকে বিচ্যুত জীবন কখনো নৈতিকতা সম্পন্ন জীবন হতে পারে না। সব ধরনের অসত্য, অন্যায়, অবিচার ও দুর্নীতিমুক্ত জীবনই আদর্শ মানবজীবন। নৈতিকতার বিচ্যুতি বর্তমানে আমাদের সমাজের সবক্ষেত্রেই দেখা যায়। বিচ্যুতি নেই এমন স্থান খুঁজে পাওয়া দুষ্কর ও কষ্টসাধ্য ব্যাপার। শিক্ষা, শিক্ষক, শিক্ষকতা, ছাত্র ও অভিভাবক দিয়েই শুরু করা যাক। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম গড়ার প্রথম ধাপ ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র, যেখানে প্রত্যেকের একটা নির্দিষ্ট ভূমিকা থাকে।

একসময় পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি নৈতিকতা, আদর্শ, আচার-আচরণ শেখানো হতো। এখন প্রায়ই দেখা যায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থীর যৌন হয়রানির ঘটনা। শিক্ষক যখন এ রকম কুকর্মে লিপ্ত থাকেন, সেই শিক্ষকের কাছ থেকে নৈতিকতা শেখার কোনো সুযোগ নেই। অভিভাবক যখন তাঁদের ছেলেমেয়েকে অনৈতিক পন্থায় পরীক্ষায় পাস বা সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়ার জন্য সমর্থন করেন, তখন ছেলেমেয়েদের মধ্যে নৈতিকতার কোনো বিকাশ হবে না, এটাই স্বাভাবিক।

লেখকঃ মোহাম্মাদ হাসান

কলামিস্ট, সংবাদ কর্মী,পিএ সাবেক গণপূর্ত মন্ত্রী

https://www.facebook.com/Md-Hassan-837086299699330/

Facebook Comments
%d bloggers like this: